সহজেই হোন প্রাণবন্ত, সুস্থ থাকার উপায়

সহজেই হোন প্রাণবন্ত, সুস্থ থাকুনচিকিৎসকের শরণাপন্ন হতে কারই বা ভালো লাগে! তাও স্বাস্থ্যের কারণেই নিয়মিত চিকিৎসকের দ্বারস্থ না হলেও নয়। কিন্তু আসলেই কি তাই? বরং সহজ কিছু উপায়ে সুস্থ ও প্রাণবন্ত থাকলেই নিজেই অনুভব করবেন অনেকটা সুস্থ

শারীরিক ব্যায়ামের বিষয়ে গোটা বিশ্ব যেখানে দিনকে দিন আরো বেশি সচেতন হয়ে উঠছে এবং ভিড় বাড়ছে জিমগুলোতে, তখনো সুস্বাস্থ্য ধরে রাখতে জিমের ওপর নির্ভরশীল হওয়া খুব একটা জরুরি নয়। সহজ কয়েকটি কাজেই স্বাস্থ্য ধরে রাখা যে কোনো ব্যাপারই নয়!

ইংরেজি পুরোনো একটি প্রবাদে বলা হয়- ‘আর্লি টু বেড অ্যান্ড আর্লি টু রাইজ, মেইকস আ ম্যান হেলদি, ওয়েলদি অ্যান্ড ওয়াইজ’। অর্থাৎ সকাল সকাল ঘুম থেকে ওঠা এবং বেশি রাত পর্যন্ত না জেগে তাড়াতাড়ি ঘুমোতে যাওয়ার কাজটাও যদি নিয়মিত করা হয়, তাহলে ব্যক্তি সুস্বাস্থ্য, সম্পদ ও জ্ঞানের অধিকারী হন।

এটাই মূল মন্ত্র। সকালে তাড়াতাড়ি ঘুম থেকে উঠলে শুধু যে কাজ সারার জন্য হাতে অনেকটা সময় পাবেন তাই নয়, শরীরকে অনেকরকম বদভ্যাস থেকে দূরে থাকবেন এবং শারীরবৃত্তীয় সব কাজের চক্রও থাকবে স্বাভাবিক।

এরপরের মন্ত্রটি হলো- হাস্যোজ্জ্বল মুখ। এই হাস্যোজ্জ্বল মুখ আপনাকে নিয়ে যেতে পারে সফলতার পথে অনেকটা দূর পর্যন্ত। হাস্যোজ্জ্বল থাকতে এবং প্রাণ খুলে হাসতে পরামর্শ দেন চিকিৎসকরাও। মানবজীবনের সবচেয়ে বড় ঔষধ হলো এই হাসিই। হাসতে থাকুন এবং নেতিবাচক চিন্তাভাবনা দূরে রাখুন। মন ভালো থাকলেই ভালো থাকবে স্বাস্থ্যও।

প্রকৃতির সাথে সময় কাটান। বাড়ির বাইরে খোলা আকাশের নিচে, খোলা মাটির ওপর দাঁড়িয়ে, শুয়ে, বসে নিজেকে সময় দিন। আমাদের ব্যস্ত নাগরিক জীবন আমাদের প্রকৃতির কাছ থেকে দূরে নিয়ে যাচ্ছে। গাছের নিচে কিংবা সমৃদ্ধ প্রকৃতির সৌন্দর্যের কোলে কয়েক ঘণ্টা খোলা বাতাসে সময় কাটানো জীবনে নিয়ে আসবে অনেকটাই সতেজতা।

মন থেকে এই কাজগুলো নিয়ে যদি নিয়মিত করতে পারেন, তাহলে জীবন সহজ হয়ে উঠবে অনেকটাই, থাকবে না চাপ। থাকবেন সুস্থ, প্রাণবন্ত ও সজীব।

Related Posts