পেশি গঠনে ভিটামিন ই

তবে ভিটামিন যেভাবে কাজ করে সেটার পন্থা সম্প্রতি আবিষ্কার করেছেন বিজ্ঞানিরা।মাংসপেশির কোষগুলোকে রক্ষা করে প্লাজমা মেমব্রেইন নামক একটি ঝিল্লি। অতিরিক্ত চাপ পড়লে ওই ঝিল্লি ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে থাকে।গবেষণায় দেখা গেছে ভিটামিন ই পেশির মেমব্রেইন সুস্থ রাখতে সাহায্য করে। এতে করে মাংসপেশিও সুস্থ থাকে।

যুক্তরাষ্ট্রের জর্জিয়া রিজেন্টস ইউনিভার্সিটির মেডিকেল কলেজ অব জর্জিয়ার জীববিজ্ঞানী এবং এই গবেষণার সহলেখক পল ম্যাকনেইল বলেন, “শরীরের প্রতিটি কোষেই প্লাজমা মেমব্রেইন থাকে। আর সব মেমব্রেইন ছিঁড়ে যেতে পারে।”

ম্যাকনেইল আরও বলেন, “ব্যায়াম করে পেশি গঠনের সময় এই ছিঁড়ে যাওয়া এবং নতুন করে গজানোর প্রক্রিয়া চলতে থাকে, এটাই স্বাভাবিক। তবে ঠিক মতো না গজালেই সমস্যা, যা থেকে পেশির কোষ মারা যেতে থাক। যদি গজানোর প্রক্রিয়া অনেকদিন ধরে চলে তবে হতে পারে পেশিক্ষয় রোগ।”

যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় স্বাস্থ্য সংস্থার মতে ভেজিটেবল অয়েল, বাদাম, সূর্যমুখীর বীজ, সবুজ শাকসবজি, ফলের রস ইত্যাদি খাবার ভিটামিন ই’র অন্যতম উৎস।

ইঁদুরের উপর চালানো এক গবেষণায় দেখা গেছে, ই ভিটামিন অভাবগ্রস্ত ইঁদুরগুলোর দৌঁড়ানোর শক্তি কম থাকে।

ফ্রি র‌্যাডিকল বায়োলজি অ্যান্ড মেডিসিন জার্নালে এই গবেষণা প্রকাশিত হয়।

Related Posts