নারীর হস্তমৈথুনের উপায়

নারীর হস্তমৈথুনের উপায় নারীর হস্তমৈথুনের কৌশলের মধ্যে রয়েছে ভালভা ও তৎসংলগ্ন এলাকায় ঘর্ষণ করা, বিশেষ করে ভগাঙ্কুরে। এই ঘর্ষণ হতে পারে তার অনামিকা বা মধ্যমা আঙুলের দ্বারা। কিছুক্ষেত্রে জি-স্পটে ঘর্ষণ সৃষ্টির জন্য যোনিপথে এক বা একাধিক আঙুল প্রবেশ করানো হয়। অনেক নারী হস্তমৈথুন করার সময় অপর হাতের দ্বারা নিজেদের স্তন ও স্তনবৃন্তে হাত বুলাতে পছন্দ করেন। কারণ এটি যৌন উত্তেজক অঙ্গ ও উত্তেজনা সৃষ্টিতে এর ভূমিকার রয়েছে। আবার কেউ কেউ পায়ু উত্তেজনাও উপভোগ করেন। নারীর হস্তমৈথুনের জন্য যোনিপথ পিচ্ছিল করতে অনেকে বাড়তি লুব্রিকেটিং বা তৈলাক্ত পদার্থ ব্যবহার করেন, বিশেষ করে যখন কোনো কিছু প্রবেশ করানো প্রয়োজন হয়। কিন্তু এটির ব্যবহার সকল স্থানে প্রচলিত নয়। অনেক নারী তাঁদের নিজেদের প্রাকৃতিক লুব্রিকেশনকেই যথেষ্ট বলে মনে করেন।

হেলদি্ষ্ট্রেক.কম দ্বারা ২০০৩ সালের সেপ্টেম্বর থেকে অক্টবরের মধ্যবর্তী সময়ে নারী পুরুষের স্বমৈথুন নিয়ে একটি জরিপ পরিচালনা করা হয়। সেই জরিপে পাওয়া তথ্য নিয়ে আমাদের এই লেখা।
জরিপের উল্লেখ যোগ্য কিছু বিষয়ঃ
টিএমএস (আঘাতকারী হস্তমৈথুন সিনড্রোম) অর্থাৎ নারী বিছানা, মেঝে কিংবা অন্য কোন বস্তুর উপর উপুড় হয়ে শুয়ে স্বমৈথুন করার ফলে পুরুষের মত মারাত্মক শাররীক সমস্যার সম্মুখীন হতে পারেন। তার মধ্যে উল্ল্যেখযোগ্য হল – যেসকল নারী অতিমাত্রায় স্বমৈথুন অথবা টিএমএস করেন তারা সঙ্গীর সাথে যৌন মিলনের সময় অপপেক্ষাকৃত কম স্বমৈথুনকরী নারীর তুলনায় কম মাত্রায় ওরগাজম (পুর্ন যৌন তৃপ্তি) অর্জন করেন।

নারী শাররীক মিলনের চেয়ে স্বমৈথুনে মজা বেশি পেয়ে থাকে বলে জরিপে জানা গেছে। পক্ষান্তরে পুরুষ হস্তমৈথুনের চেয়ে শাররীক মিলনকালেই বেশি আনন্দ উপভোগ করে থাকেন।
অধিকাংশ নারীরা সাধারনত অন্যের কাছ থেকে অথবা বই কিংবা ছবি দেখে স্বমৈথুন শিখে থাকেন। পুরুষের ক্ষেত্রে অন্যের কাছ থেকে শিক্ষা নেবার হার তুলনামুলক ভাবে কম।
স্বমৈথুনকারী ৮৬ ভাগ নারী যোনী মুখের পর্দা মর্দন করে হস্তমৈথুনের আনন্দ নিয়ে থাকে। ৭৪ ভাগ নারী যৌনাঙ্গে আঙ্গুল কিংবা অন্য কোন বস্তু ঢুকিয়ে স্বমৈথুন করেন।
পুরুষের তুলনায় অর্ধেকের বেশী নারী স্বমৈথুন কালে হাত পরিবর্তন করে থাকেন।
শাররীক মিলনের আসনগুলোর মাঝে নারীগন – “নারী পুরুষের উপর আরোহন” করা অবস্থায় অধিকতর ওরগাজম তথা পুর্ন যৌন তৃপ্তি অর্জন করতে সক্ষম।

অংশগ্রহনকারীদের মাঝে ৪৭ ভাগ শুধুমাত্র বিপরীত লিঙ্গের সাথে শাররীক সম্পর্কে যুক্ত। ২৩ ভাগ বেশির ভাগ সময় বিপরীত লিঙ্গের সাথে শাররীক সম্পর্ক (এবং মাঝে মাঝে উভয় লিঙ্গের সাথে) যুক্ত। ১৮ ভাগ উভয় লিঙ্গের ব্যাক্তির সাথে শাররীক সম্পর্কে লিপ্ত। ৬ ভাগ অংশগ্রহনকারী সমকামী। এবং ৬ ভাগ এ বিষয়ে সন্ধিহান।

তথাপি এই জরিপে নারীর স্বমৈথুন্য বিষয়ে সামান্য পরিমান উল্ল্যেখযোগ্য তথ্য এবং যেসকল নারী স্বমৈথুন করেন এবং যারা করেন না তাদের পার্থক্য দেখানোর চেষ্টা করা হয়েছে।

জরিপে বিভিন্ন দেশেরে ১৭৮ জন নারী অংশগ্রহন করেছিলেন। যাদের বয়সসীমা ১০ বছর থেকে ৬০ বছর পর্যন্ত ছিল। ১৭৮ জনের ১১৯ জন শাররীক যৌন মিলনের অভিজ্ঞতা আছে। ৫৯ জন কখনো শাররীক মিলন করেননি। ১৭৩ জন স্বমৈথুন করেছেন জীবনের কোন না কোন সময়।
জরিপে অংশগ্রহনকারীদের ১১৯ জন অর্থাৎ ৬৮% নিজে নিজে স্বমৈথুন শিখেছেন। অন্যদিকে ৮৭% পুরুষ নিজে নিজে এ বিষয়টি শিখে থাকেন। ২৩ ভাগ নারী অন্যের কাছ থেকে এবং ৮ ভাগ বিভিন্ন বই অথবা ছবি দেখে স্বমৈথুন শিখেছেন। গড়পড়তা নারীরা ১৩.১ বছর বয়সে প্রথম বার স্বমৈথুন করেছেন।

বেশির ভাগ জরিপে দেখা যায় মেয়েরা পিতামাতার কাছ থেকে ছেলেদের তুলনায় বেশি যৌনশিক্ষা পেয়ে থাকে। তবে স্বমৈথুনের ব্যাপারে নাটকীয় ভাবে ৭০ ভাগ নারীর পিতা মাতা কোন তথ্যই তাদের দেন না। এবং ৯ ভাগ পিতামাতা ভুল শিক্ষা দিয়েছিলেন।

জরিপে নারীগন গড়ে মাসে ২১.৮৪ বার স্বমৈথুন করেন। স্বমৈথূনে পুর্ন তৃপ্তির জন্য গড়পড়তা তাদের ১০ মিনিট সময় লাগে। ৯১ জন নারী বলেছেন তারা সঠিক যৌন সঙ্গী পেয়েছেন এবং তারা মাসে গড়পড়তা ১৩.৬৯ বার শাররীক মিলন করেন। অন্যরা প্রায় মাসিক ৮ বারের মত শাররীক মিলনে লিপ্ত হন।

বিভিন্ন আসনভঙ্গীতে পুর্ন-তৃপ্তির (ওরগাজম) আনুপাতিক হারঃ

মিশনারী (সাধারন পদ্ধতি): তৃপ্ত = ৭০%। তৃপ্ত নয় = ২৮%। ধারনা নেই = ৩%।
নারী উপরে (আরোহন): তৃপ্ত = ৭৭%। তৃপ্ত নয় = ১৮%। ধারনা নেই = ৪%।
হাটু এবং কনুই তে ভর করে (ডগি ষ্টাইল): তৃপ্ত = ৫৯%। তৃপ্ত নয় = ২৫%। ধারনা নেই = ১৬%।
কোলে বসে: তৃপ্ত = ৪৫%। তৃপ্ত নয় = ২৯%। ধারনা নেই = ২৫%।
দাড়িয়ে: তৃপ্ত = ২৯%। তৃপ্ত নয় = ৩৮%। ধারনা নেই = ৩৩%।
অন্যান্য আসন: তৃপ্ত = ৪২%। তৃপ্ত নয় = ১৯%। ধারনা নেই = ৩৯%।

নারীরা প্রধানত যোনি অভ্যন্তরস্থ ভগাঙ্কুর আঙ্গুলের সাহায্যে নাড়াচাড়া করে কামোত্তেজনা প্রশমিত করে থাকে। তবে এতে পুরুষের বীর্যপাতের ন্যায় কোনও চরম ঘটনা ঘটে না। প্রচীনকালে নারী হস্তমৈথুনের জন্য পোড়ামাটির লিঙ্গ ব্যবহার করতো বলে প্রত্নতাত্ত্বিক অনুসন্ধানে প্রমাণিত হয়েছে। আধুনিক কালে হস্তমৈথুনের সময় যোনি ও ভগাঙ্কুরকে উত্তেজিত করে তুলতে বিভিন্ন কৃত্রিম বস্তুর সাহায্য নেওয়া হতে পারে যেমন কম্পক দণ্ড (ভাইব্রেটর), কৃত্রিম শিশ্ন (ডিলডো) এবং বেন ওয়া বল।

Related Posts