অসীমের প্রেম পত্র!

অসীমের প্রেম পত্র!অসীমের প্রেম পত্র!অসীম নামে আমার এক কাছের বন্ধু, যে এতটাই কাছের তা ভাষায় প্রকাশ করার মত নয়। ২০০৭ সালের কোন এক সময়ে লিখেছিল এই চিঠিটি, তখন সে স্কুল শেষ করেছে মাত্র। দুই পাতায় লেখা ডাইরির সেই চিঠি টি তার কাছের সবগুলো মানুষের হাতের স্পর্শ পেয়েছে, কিন্তু যার উদ্দেশ্যে লেখা তার স্পর্শ থেকেছে অধরাই! এই প্রথম কারো লেখা শেয়ার করছি, আর মূলত শেয়ার করার লোভ সামলাতে পারি নি। তাই শেয়ার করা।

নিপা,

আজ আকাশের বুকে নেই একটি তারা। শীতের ঠাণ্ডা হাওয়া ঘরের পর্দাগুলো এলোমেলো ভাবে উড়ছে। খুব কষ্টে বুক ফেটে যাচ্ছে। দু চোখে জল টলমল করছে। কিন্তু এক ফোঁটাও পানি গড়িয়ে পড়ছে না। এমনি এক গভীর রাতে তোমাকে মনে পড়ছে। তাই বহুদিন পর তোমাকে লিখতে বসলাম। আশা করি ভালো আছ, sorry আশা নয় আমার বিশ্বাস তুমি ভাল আছো। … আর আমি… ব্যর্থতা পরাজয় সে কি ভালো থাকতে পারে?

বহুদিনের পুরনো ক্ষতের মত আমার হৃদয়ে সহসা রক্ত ক্ষরণ হয়, বুকের পাজর ভেঙে যেতে যায়, শুধু একবার তোমাকে দেখার জন্য।

হে বন্ধু,

আমি জানি না তোমার হৃদয়ের শান্ত কুটিরে রাতের নির্জনতায় আমার উপস্থিতি টের পাও কিনা!

যদিও আমি তোমার কাছ থেকে বেশ কিছুকাল দূরে ছিলাম, তাই বলে তুমি আমার ভালোবাসাকে মিথ্যা বা অবিশ্বস্ত বলো না। আমার প্রেম তোমার আত্মার মধ্যেই বাস করে। যদিও আমি দূরে সরে গিয়েছিলাম বাধ্য হয়ে। কিন্তু আজ আমি ফিরে এসেছি। আমি জানি আমার জন্যই তোমার ভাগ্যের মনে বিরোধ বেঁধেছে। নির্মম ক্ষতির পথে যে ভাগ্য আমাকে অবিরত নিয়ে গেছে। যে ভাগ্য আমার জীবনে কন উন্নতি দেয় নি, সকলের মত এক অতি সাধারণ সামান্য জীবন দিয়েছে। সেই কারণেই ভাগ্যের কঠিন বিধানে আমার নিয়তি চিহ্নিত হয়ে আছে। ভাগ্য দোষে আজ আমার অন্তরে সমস্ত তেজস্বীতা ম্লান হয়ে গেছে। যন্ত্রের মতও কাজ করে গেছি তবুও জীবনে কোন মানে খুঁজে পায় নি। তাই আজ আমি তোমার কাছেই ফিরে এসেছি, তুমি আমাকে করুণা করো।

হে আমার প্রিয় বন্ধু,

আমার মনে যখন আজ পুরানো প্রেম জাগ্রত হয়েছে নতুন করে তোমার পথে যখন দিয়েছি আমার সমস্ত শ্রদ্ধাসিক্ত ভালোবাসার অঞ্জলি তবে আমাকে তুমি ফিরিয়ে দিও না। আজও তুমি সেই আগের মত করুণা করে যাও।

তুমি হয়ত জানো না আমার হৃদয়ের মন্দিরে তোমার প্রতিমা গড়ে রেখেছি তাতে প্রতিদিন পূজা রচনা করি।

হে বন্ধু,

তুমি পুরনো কথা ভুলে যাও। মুছে ফেলো সব স্মৃতি, তুমি তোমার হৃদয়ের প্রথম অধ্যায় বের করে দেখো। তাতে শুধু এই আমার ছবি আঁকা রয়েছে। এই ছবি তো তুমি একদিন এঁকেছিলে। আমি এও জানি যে তুমি তোমার হৃদয় থেকে আমার ছবি দূরে সরিয়ে রেখেছিলে আর তা করেছিলে আমার দুর্বলতার সুযোগ নিয়ে। আর এটাই ছিল আমার জীবনের চরম ব্যর্থতা। এর সব কিছুই করেছ তুমি সুখের জন্যে কিন্তু তা কখনো পাও নি। পেয়েছ শুধু কষ্ট। থাক ও সব কথা। এখন তোমাকে আমি অনুরোধ করছি নতুন করে, জীবনের তৃতীয় অধ্যায় রচনা করতে।

হে বন্ধু তুমি সুন্দর। তুমি কখনো চিরদিনের জন্য বৃদ্ধ হবে না। প্রথম যেদিন তোমাকে দেখি সেদিন যেমন ছিলে আজো তুমি ঠিক তেমনি আছো । শীতার্ত বনের বুকে তুমি একের পর এক বসন্তকে ডেকে আনো, তোমার সৌন্দর্য তবুও ক্ষয় হবে না। চির অক্ষত থাকবে। তোমাকে যে দিন দেখেছি সে দিন থেকে কত ঋতু চেল গেছে বসন্তের কত রূপ, হেমন্তে হলুদ বরন ধারণ করেছে। তবু তুমি এই প্রভাতে সেদিনের মতো সৌন্দর্যে চির সবুজ আছো।

হে মোর প্রিয়,

আমার এই প্রেম যেন প্রতিমার উপাসনা না হয়। আমার প্রেমিকা তুমি যেন শুধু সাজানো পুতুল না হও!

হে মায়াবিনী,

অবহেলা অনাদর আর অসহনীয় যাতনার নির্মম আঘাতে আঘাতে আমার হৃদপিণ্ডের মধ্যে দুঃখ বুঝার মত যত সূক্ষ্ম তন্ত্রী ছিল তা সব ছিঁড়ে গেছে। এখন আর সহজেই চোখ উপচে জল আসে না। কোন কিছুর জন্য অভাব বোধ জাগে না। শুধু তোমার জন্যে হৃদয়টা নীরবে নিঃশব্দে একাকী কাঁদে।

তাই আবারো বলছি তুমি আমাকে করুণা করো। আমাকে ফিরিয়ে দিও না। আর কি লিখব ভালো থেকো সুস্থ থেকে সত্যের পথে থেকো।

ইতি-
তোমার নিত্য শুভার্থী

অতঃপর সেই ডাইরির পাতার লাস্ট পাতায় অসীম তার সুন্দর হাতের লেখায় লাল নীল ও কালো রঙে লেখে রাখে-

তোমার কথা মনে হলে
হৃদয় গহীনে বেদনা জাগে
স্মৃতির দর্পণে
ভেসে উঠে সেই চেনা মুখ,
সেকি একদার প্রেম
নাকি স্মৃতির অসুখ?
বহুদিন চলে গেছে মনের আঙ্গিনা থেকে
আজো কি সরাতে পেরেছি?
কর্ম ক্লান্ত অবসরে বার বার
শুধু মনে করেছি।

হে মোর প্রিয়
তুমি চলে এসো বাধার প্রাচীর ভেঙে
হৃদয়ের বেষ্টনীতে।

Related Posts